স্থূলতার চিকিৎসায় আশার আলো দেখাচ্ছে  ‘জিএলপি-১’ ওষুধ

বিএসএমএমইউর গবেষণা

by glmmostofa@gmail.com

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

বাংলাদেশে স্থূলতা, বাড়তি ওজন বা মুটিয়ে যাওয়া (obesity) মানুষের সংখ্যা দিন দিন ভয়াবহ আকারে বাড়ছে।  এটি এমন একটি শারীরিক অবস্থা যা শরীরে অতিরিক্ত চর্বি জমার ফলে নানান রোগ সৃষ্টিতে প্রভাবক হিসেবে কাজ করে। এটি রোগাক্রান্ত মানুষের আয়ুষ্কাল কমিয়ে দেয়। ফলে স্থূলতা রোগকে একটি নীরব ঘাতক হিসেবে চিহ্নিত করেছেন চিকিৎসকরা। আর রোগীর সংখ্যা বাড়লেও তাদের সেবার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষ জনবল ও অবকাঠামো তৈরি হয়নি। তবে নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ˜) অ্যান্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের অধীন ওবেসিটি ক্লিনিকে আসা রোগীদের মধ্যে ‘জিএলপি-১’ রিসেপ্টর অ্যাগোনিস্ট ধরনের ওষুধ প্রয়োগে আশানুরূপ ফল এসেছে বলে দাবি করা হয়েছে।

বুধবার বিএসএমএমইউয়ের ‘আপডেট ম্যানেজমেন্ট অব ওবেসিটি’ শীর্ষক সিএমই সেমিনারে এই দাবি করা হয়। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অ্যান্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. তানিয়া হক, ফেজ-বি রেসিডেন্ট ডা. রাকিব মিয়া ও ডা. নিলুফার ইয়াসমিন।

 

মূল প্রবন্ধে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যান্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের অধীনে ওবেসিটি ক্লিনিক এসব রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। গত এক বছরে এই ক্লিনিকে বিভিন্ন বয়সের শত শত রোগীর মাঝে ৫০ জন জন ওবেসিটি রোগীকে বিশেষভাবে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। এই রোগীদের মাঝে মাত্র ২১ জন রোগী নিয়মিত ওবেসিটি ক্লিনিকের ফলোআপে থেকেছেন। এই ফলোআপে থাকা রোগীদের মাঝে জিএলপি-১ অ্যাগোনিস্ট ধরনের ওষুধ প্রয়োগ করা হয়। এই ওষুধের পাশাপাশি রোগীদের ডায়েট চার্ট ও শারীরিক পরিশ্রম করার জন্য বলা হয়। এর ফলে তারা আশানুরূপ আরোগ্য লাভ করেছে।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, মেদাধিক্য বা ওবেসিটি হলো শরীরের এক বিশেষ অবস্থা, এই অবস্থায় শরীরে অতিরিক্ত স্নেহ বা চর্বি জাতীয় পদার্থ জমা হয় এবং স্বাস্থ্যের ওপর এর ক্ষতিকারক প্রভাব পড়ে। এর ফলে আয়ু কমে যাওয়াসহ একইসঙ্গে শারীরিক নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। হৃদরোগ, স্ট্রোক, ডায়াবেটিস, শুয়ে থাকার সময় শ্বাসকষ্ট, ক্যান্সার, অস্টিওআর্থারাইটিস এর মতো রোগও দেখা দিতে পারে।

 

তারা বলেন, কম বয়সী নারী রোগীদের অনিয়মিত মাসিক ও শারীরিক কাঠামোর পরিবর্তন হতে পারে। অতিরিক্ত ক্যালোরিযুক্ত খাদ্যগ্রহণ, কায়িক শ্রমের অভাব, বংশ পরম্পরায় জিনগত বৈশিষ্ট্য থেকে প্রাপ্ত গুণাবলী, কিছু ক্ষেত্রে জিনের চরিত্রের পরিবর্তন, হরমোন গ্রন্থির গণ্ডগোল, ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া, মানসিক অসুস্থতা ইত্যাদিকেই স্থূল বা মোটা হয়ে যাওয়ার জন্য দায়ী করা হয়।

 সেমিনারে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন রোগীদের সেবার মান ও যথাযথ সেবা প্রদানে আন্তরিক। বর্তমান প্রশাসন রোগীদের সেবার জন্য বিভিন্ন ধরণের গবেষণামূলক পদ্ধতি প্রয়োগ অব্যাহত রেখেছে। এর অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরে রোগীদের ক্যাটাগরি করে বিভিন্ন ক্লিনিক চালু করেছে।

তিনি বলেন, এ ক্লিনিকগুলোতে আন্তর্জাতিক মানের সেবা দেওয়া হচ্ছে। সময়ের প্রয়োজনে এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের অধীনে ওবেসিটি ক্লিনিক চালু করা হয়েছে। এই ক্লিনিকের সেবা পেয়ে অনেক রোগী আজ স্বাভাবিক জীবন যাপনে ফিরেছেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অ্যান্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. ফরিদ উদ্দিন। এতে  আরও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাহাজাদা সেলিম। সেমিনারটি সঞ্চালন করেন মেডিকেল অফিসার ডা. মিতা দত্ত। এছাড়াও সেমিনারে প্যানেল অব এক্সপার্ট হিসেবে হিসেবে মতামত প্রদান করেন নেফ্রোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. নজরুল ইসলাম,  ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. সোহেল মাহমুদ আরাফাত, বক্ষব্যাধি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. রাজাশীষ চক্রবর্তী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যান্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শারমিন জাহান প্রমূখ।

You may also like

সম্পাদক : হামীম কেফায়েত

গ্রেটার ঢাকা পাবলিকেশন নিউমার্কেট সিটি কমপ্লেক্স ৪৪/১, রহিম স্কয়ার

নিউমার্কেট, ঢাকা ১২০৫

যোগাযোগ : +8801712813999
ইমেইল : news@pran24.com